গোস্ত গেল কোথায় -- মোল্লা নাসিরউদ্দিন

    একদিন নাসিরউদ্দিন বাজার থেকে খানিকটা মাংস কিনে আনলেন কাবাব খাবেন বলে। অনেকদিন পরে কাবাব খাওয়া হবে, তাই গিন্নীকে মাংসটা বুঝিয়ে দিয়ে চলে গেলেন বন্ধুদের আড্ডায়। বন্ধুর বাড়ীতে গল্পগুজব করে যখন ক্ষিদেটা বেশ চাগিয়ে উঠেছে, তখন বাড়ী ফিরে গোসলখানায় ঢুকলেন গিন্নীকে খাবার দিতে বলে।
    এদিকে হয়েছে কী, কাবাব তৈরী হবার পর গিন্নীর ক'জন বান্ধবী এসেছিল তাদের বাড়ী। ভদ্রতার খাতিরে নাসির-গিন্নী সবটা কাবাবই তাদের পরিবেশন করে ফেলেছেন।
    গোসল সেরে খাবার জন্য আসনে বসতেই গিন্নী তার স্বামীর সামলে রাখলেন এক থালা সুরুয়া। কাবাবের বদলে সুরুয়া দেখে মোল্লার চক্ষু চড়কগাছ, ‘একি, গোস্ত কি হোল?’
    গিন্নীর উত্তর—‘পাজি বেড়ালটা সব খেয়ে নিয়েছে।’ 
    নাসিরউদ্দিন তো মহা খাপ্পা । বলেন—‘আধসের গোস্ত এনেছিলাম, সবটাই বেড়ালে খেলো! বেশ, সত্যাসত্য পরখ করছি এখুনি।’
    নাসিরউদ্দিন তৎক্ষণাৎ একটা দাঁড়িপাল্লা এনে কায়দা করে বেড়ালটাকে ধরে, পা বেঁধে দাঁড়িপাল্লার এক পাশে চাপিয়ে আর। এক ধারে চাপালেন আধসের বাটখারা। দেথা গেল—বেড়ালটার ওজন মাত্র অাধাসের ।
    তাজ্জব নাসিরউদ্দিন তখন গিন্নীকে শুধু একটা প্রশ্নই করেন, ‘বেড়ালটার ওজন দেখছি আধ সের। ওটাই যদি গোস্ত হয়, তাহলে বেড়ালটা গেল কোথায়? অার এটাই যদি বেড়াল হয়, তাহলে গোস্ত গেল কোথায়?’
Previous
Next Post »
0 মন্তব্য