ষাঁড়ের দুধ চাই

  বাদশা আকবর মাঝে মাঝে বীরবলের কাছে নানা অন্যায় আবদার করতেন। একদিন তিনি বললেন, ‘শোনো বীরবল, যেখান থেকে পারো আমাকে ষাঁড়ের দুধ এনে দাও। আর যদি না পারো তাহলে তোমায় আমি শূলে চড়াব।'
    বীরবল তো শুনে অবাক! ষাঁড়ের দুধ!! এ কী করে সম্ভব!!!
    যা হোক, বাড়ি এসে অনেক ভাবনাচিন্তা করে তিনি স্ত্রীকে বললেন, ‘শোনো, আজ রাতে সবাই যখন ঘুমিয়ে পড়বে, তুমি তখন রাজবাড়িতে গিযে খুব জোরে জোরে শব্দ করে কাপড় কাচবে ‘ তারপর কী করতে হবে তাও ভাল করে বুঝিয়ে দিলেন।
    বীরবলের কথামতো তার স্ত্রী মাঝরাতে রাজবাড়িতে গিয়ে কাপড় কাচতে লাগলেন। কাপড় কাচার শব্দে বাদশার ঘুম গেল ভেঙে। তিনি চেঁচিয়ে বললেন, ‘এই কে আছিস, দেখ তো কোন বেআক্কেলটা এত রাতে কাপড় কাচতে বসেছে, শিগগির তাকে ধরে নিয়ে আয়।’
     রক্ষীরা সঙ্গে সঙ্গে বীরবলের স্ত্রীকে ধরে নিয়ে এল। বাদশা খুব রেগে জিজ্ঞেস করলেন, ‘তুমি কি সারাদিন কাপড় কাচার আর সময় পেলে না, এই এত রাতে সবার ঘুমের ব্যাঘাত ঘটিয়ে কাপড় কাচতে বসেছ?
    বীরবলের স্ত্রী কাঁদো-কাঁদো হয়ে বললেন, কী বলব জাঁহাপনা, কাল আমার স্বামীর একটি সন্তান হয়েছে তাই সারাদিন একদম সময় পাইনি। সব কাজ তো আমাকেই করতে হয়।’
    বাদশা এবার খুব রেগে গিয়ে বললেন, ‘মাঝ রাতে আমার সঙ্গে মশকরা করা হচ্ছে, পুরুষ মানুষের আবার সন্তান হয় নাকি!
    বীরবলের স্ত্রী বললেন, ষাঁড়ে যদি দুধ দিতে পারে, তবে এটা না হওয়ার কী আছে?
    আকবার এবার বীরবলের স্ত্রীকে চিনতে পারলেন এবং পরদিন রাজসভায় ডেকে বীরবলকে প্রচুর পুরস্কার দিলেন।
Previous
Next Post »
0 মন্তব্য