বীরবলের বিচার

    সম্রাট আকবরের রাজ্যে দু’জন পালোয়ান ছিল। দুজনেরই গায়ে ছিল প্রচণ্ড শক্তি—কেউ কারও চেয়ে কম যায় না। একদিন দুজনে পণ রেখে কুস্তি শুরু করল। পণের শর্ত, যে জিতবে সে পরাজিতের শরীর থেকে এক সের মাংস কেটে নেবে।
    অনেকক্ষণ ধরে দুজনের খুব কুস্তি হল। শেষে একজন হার স্বীকার করল। সে বলল, ‘তুমি আমার পিঠ থেকে এক সের মাংস কেটে নাও।’
    কিন্তু যে জয়ী হল সে বলল, না, পণের শর্ত ছিল যেখান থেকে খুশি মাংস কেটে নেওয়া যাবে, আমি তোমার বুক থেকে মাংস কেটে নেব ।
    কিন্তু পরাজিত পালোয়ান বুকের মাংস দিতে কিছুতেই রাজি হল না। সে বলল, বাঃ, বুকের মাংস কেটে নিলে আমার তো মৃত্যু হতে পারে।’
    অবশেষে তারা সুকিচারের আশায় বাদশার দরবারে গিয়ে হাজির হল। বাদশা বিচারের ভার বীরবলের ওপর দিলেন।
    বীরবল সব ঘটনা শুনে বিজয়ী পালোয়ানকে বলল, তুমি ঠিকই বলেছ, তুমি যেখান থেকে খুশি মাংস কেটে নিতে পারো। তবে একটা কথা, তোমাকে ঠিক এক সের মাংসই কেটে নিতে হবে, এক রতি কম বা বেশি নিলেও চলবে না। আর তোমাদের পণের শর্ত ছিল এক সের মাংস, তাই শুধু মাংসই নিতে পারবে, এক ফোঁটা রক্ত বের হলে তোমায় উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে। এবার তুমি মাংস কাটতে পারো।’
    বিজয়ী পালোয়ান বুঝল, এ অসম্ভব ব্যাপার। সে চুপচাপ দরবার থেকে বেরিয়ে গেল। আর পরাজিত পালোয়ান এ যাত্রায় প্রাণে বেঁচে গেল।
Previous
Next Post »
0 মন্তব্য