প্রকৃত সুখী কে?

সেদিন বাদশা আকবর দরবারে বিশেষ অধিবেশন বলছে।
সভাসদরা সকলেই উপস্থিত।
স্বনামখ্যাত মন্ত্রী বীরবলও তাঁর আসনে বসে আছেন যথাস্থানে। এক প্রশ্নের ঝলকে বাদশা হঠাৎ সভার কাজের মাঝে কেমন একটু উদাস ও বিমর্ষ হয়ে গেলেন।
কথার মধ্যেই তিনি বীরবলকে জিজ্ঞেস করলেন,‘আচ্ছা বীরবল, বলো তো জগতে প্রকৃত সুখী কে? যদি বলতে পারো তবেই বুঝব সত্যিই তুমি বুদ্ধিমান।’
বীরবল একটু ভেবে চিন্তিত মুখেই জবাব দিলেন,‘এ জগতে কোন মানুষই সুখী নয় সম্রাট। একমাত্র তারা সুখী হয় শুধু মৃত্যুর পরে, তার আগে নয়।’
বাদশা বললেন, ‘কেন এরকম হ? এরকম হওয়ার কারণ কী বুঝিয়ে বলো।’
‘কারণটা খুবই সুস্পষ্ট জাঁহাপনা। আজ যে নিজেকে সুখী বলে মনে করছে, আগামীকালই হয়তো সে এমন সীমাহীন থমথমে দুঃখে পড়তে পারে, যার তুলনা নেই। আজ নিজেকে সুখী নিশ্চিত বলে মনে করছে, সে-ই আগামীকালের চিন্তায় সবচেয়ে ব্যস্ত। আস্ন্ বিপদের কালো ছায়া তার সবকিছু সুখস্বপ্নকে মুহূর্তে ছিন্নভিন্ন করে দেয়। আপাতদিৃষ্টিতে যে মানুষকে সুখী বলে মনে হয় প্রকৃত সুখ মৃত্যুর পরেই আগে। কারন মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে মানুষের সকল দুঃখের অবসান হয়। এই জন্য আমার মতে, মৃত্যুর পরেই সকলে সুখী হয়।’
সম্রাট মুগ্ধ হলেন বীরবলের অকপট ভাষণে।
Previous
Next Post »
0 মন্তব্য