কাক জাতক

বোধিসত্ত্ব একবার সমুদ্র দেবতা হন। একদিন এক কাক আর তার বউ খাবার খুঁজতে খুঁজতে সমুদ্রেব তীরে চলে আসে। তখন অনেকে সমূদ্র পুজো করছিল। ক্ষীর, পায়েস, মাছ, মাংস আর মদ সমুদ্রেব তীরে ঢেলে দিচ্ছিল। কাক আর কাকের বউ পূজোর মাছ-মংস-মিঠাই আশ মিটয়ে খেল। এমনকি অনেকটা মদও খেয়ে ফেলল। 
কাক তখন তাৰ বউকে বলল, চল, সমুদ্রে স্নান করি। 
বউ বলল, হ্যা, চল। খুব মজা হবে তাহলে ?
নেশার ফূর্তিতেতাৰা জলে নেমে খুব খেলতে লাগল। ডুব দিয়ে স্নান করতে লাগল। হঠাৎ এক মস্ত ঢেউ এসে কাকের বউকে ভাসিয়ে নিয়ে গেল। তখন বড় একটা মাছ খপ কবে তাকে ধরে ফেলল। কাকের বউ গেল মাছেৰ পেটে ।
বেচারা কাক বউকে খুঁজে না পেয়ে সুর করে কাঁদতে শুরু করল। কাকের কান্না শুনে যেখানে যত কাক ছিল ছুটে এল। তারা কাককে জিজ্ঞেস করল, কি হয়েছে ভাই ?
কাক বলল, পাজি সমুদ্র আমার বউকে ভাসিয়ে নিয়ে গেল।
শুনে তারা বলল, ঠিক আছে, আমরা সবাই মিলে সমুদ্র সেঁচে ফেলব। সত্যি সত্যি তারা কাজে লেগে পড়ল। ঠোঁটে করে একেকজন জল এনে তীরে ফেলতে লাগল। নুনে মুখ পুড়ে যাচ্ছিল, চোখ লাল হযে উঠল। মাঝে মাঝে তারা একটু জিবিয়ে নেয়, আবার জল সেচে ফেলে। এভাবে অনেকক্ষণ কাজ করে গেল । কিন্তু জল এক বিন্দুও কমে না। শেষে তারা হতাশ হয়ে বলল, ঘন জলে মুখপোডালে কি হবে, জল কমার নাম নেই। এভাবে কিছু হবে না ভাই।'

তখন তারা কাকে বউয়ের কথা বলে বলিাপ করতে লাগল। তার লেজ কত সুন্দৰ ছিল, সে কি মিষ্টি স্বরে ডাকত—এইসব বলে কাঁদতে লাগল। তারপর তারা সমুদ্রকে গালমন্দ করতে লাগল। সমুদ্রদেবতা তখন ভীষণ রূপ ধাৰণ করে কাকদেবের সামনে এলেন। ঐ রূপ দেখে কাকরা ভয়ে পালিযে গেল। আৰ ঠিক তখনি এক বিশাল ঢেউ সেখানে আছড়ে পড়ল। ভাগ্যিস কাকরা পালিয়েছিল, নইলে একটা কাকও প্রাণে বাঁচত না। 

এই জাতকেৰ শিক্ষা হল: খুব বড়র সঙ্গে লড়াই করা যায় না।

Previous
Next Post »
0 মন্তব্য