মা’র কথা মনে পড়ে যায় --মোল্লা নাসিরউদ্দিন

একদিন কী এক তুচ্ছ ব্যাপার নিয়ে নাসিরুদ্দিন আর তার গিল্পীর বিরাট ঝগড়া। রাগের মাথায় নাসিরুদ্দিন-গিন্নী ভুল করে তরকারীতে একগাদা লঙ্কা দিয়ে বসলেন ।
তারপর কোন এক সময়ে ঝগড়াঝাটি মিটে গেল। দুজনে খুব হাসিখুশী ।
ক’ঘণ্টা পরে গোসল সেরে নাসিরুদ্দিন খেতে বসলেন গিন্নীর সঙ্গে ।
গিল্পীর তো আর খেয়ালই নেই ভুলে প্রথম গ্রাসেই সেই তরকারিটা সর্বাগ্রে মুখে পুরলেন । জ্বলুনি চাপতে খাবারটা গিলে ফেলার সঙ্গে সঙ্গে চোখ দিয়ে, নাক দিয়ে জল ঝরতে থাকে নাসির তো আসল ব্যাপারটা জানতেন না। ভাবলেন গিন্নী কাঁদছেন। শুধালেন—তুমি কাঁদছে কেন গিন্নী ? আমি তো ঝগড়া মিটিয়ে নিয়েছি দোষ স্বীকার করে।’
নাগো, আমি সেজন্যে কাঁদছি না। এই তরকারিটা আমার মা রান্না করতে খুব ভালবাসতেন। মুখে দেওয়া মাত্র তার কথা মনে পড়ে গেল, তাই চোখে জল !
সহানুভূতি জানিয়ে মোল্লা এবারে খাওয়ায় মন দিলেন । ঐ তরকারিটা মুখে দেয়া মাত্র লঙ্কার ঝাঁজে তারও চোখে জল ।
স্বামীর এহেন দুর্দশায় গিল্পী মনে-মনে খুব খুশী । জিগ্যেস করেন, ‘তুমি কাঁদছো কেন গো ?
'আমার কান্না পেলে তোমার মায়ের কথা মনে পড়তেই। হায়, এমন একটা অপদার্থ মেয়েকে এহেন রান্না শিখিয়েছিলেন তিনি !’

Previous
Next Post »
0 মন্তব্য