তিন মুসাফির - বাংলাদেশের লোককাহিনী

     আগেকার দিনে একদল লোকে দেশে দেশে মুসাফিরী করিয়া বেড়াইত। নানা জায়গায় ঘুরিয়া তাহারা সকল দেশের রীতিনীতি জানিয়া বইপুস্তক লিখিত। তাহাদের মধ্যে হিন্দু, মুসলমান, খ্রিস্টান, ইহুদি, সকলেই থাকিত । ভিন্ন জাতের বলিয়া কেহ কাহাকেও অবহেলা করিত না ।
     এমনি তিন মুসাফির বিদেশ ভ্রমণে বাহির হইয়াছে। এক ইহুদি, এক খ্রিস্টান, আর এক মুসলমান। সেদিন তাহারা ঘুরিতে ঘুরিতে এক নূতন দেশে আসিয়া উপস্থিত হইল।
     পথ চলিয়া তাহারা যেমনই হয়রান, তেমনই ক্ষুধায় কাতর। কিন্তু তখন অনেক রাত্র হইয়াছে। গৃহস্থেরা সকলে ঘরদোর বন্ধ করিয়া ঘুমেইয়া পড়িয়াছে। না পাইল তাহারা আহার— না পাইল থাকিবার জায়গা! একটা বটগাছের তলায় কম্বল বিছাইয়া তাহারা শুইবার জোগাড় করিল।
     এমন সময় একটি লোক সামান্য কিছু মিঠাই আনিয়া তাহাদের উপহার দিল । তিনজনেরই এত ক্ষুধা পাইয়াছিল যে, এই সামান্য মিঠাই ভাগ করিয়া খাইলে তাহাদের কাহারও পেট ভরিবে না। ক্ষুধার সময় সামান্য কিছু খাইলে ক্ষুধা আরও বাড়ে । তাই তাহাদের মধ্যে একজন বলিল, “এসো ভাই ! আমরা সকলেই ঘুমাইয়া পড়ি। ঘুমাইয়া ঘুমাইয়া যে সবচাইতে ভাল স্বপ্ন দেখিবে, সে-ই মিঠাই খইবে।” একথা সকলেই মানিয়া লইল । তাহারা যার যার বিছানায় শুইয়া ঘুমাইয়া পড়িল । 
     তখন ছিল রমজান মাস। শেষরাত্রে মুসলমান মুসাফির সেহেরি খাওয়ার ঘোষণা শুনিয়াই জাগিয়া উঠিল – জাগিয়া উঠিয়া টপটপ করিয়া সমস্ত মিঠাই খাইয়া ফেলিল, আর মিঠাইএর পাত্রটি রুমাল দিয়া ঢাকিয়া রাখিল । 
     ইহার মধ্যে ভোর হইয়াছে। খ্রিস্টান আর ইহুদিও আড়ামোড়া দিয়া জাগিয়া উঠিল । তখন তাহারা একে অপরকে জিজ্ঞাসা করিতে লাগিল, কে কেমন স্বপ্ন দেখিয়াছে। 
     প্রথমে খ্রিস্টান বলিতে আরম্ভ করিল, “আরে, ভাই, আমি যে কি মজার স্বপ্ন দেখিয়াছি!” 
ইহুদি আগাইয়া আসিয়া বলিল, “কি দেখিয়াছ, ভাই ?” 
   খ্রিস্টান বলিতে লাগিল, “দেখিলাম, আমি যেন আকাশে উড়িতে উড়িতে সেই চৌঠা আসমানের উপর যাইয়া দাঁড়াইলাম । সেখানে ঈশা নবী আমার হাতটি ধরিয়া কত কথাই না বলিলেন!” 
   ইহুদি বলিল, “আমি ভাই আরও ভাল স্বপ্ন দেখিয়াছি! কোথাকার একটা ময়ূর আসিয়া আমাকে তাহার পাখায় বসাইয়া উড়াইয়া লইয়া গেল। তারপর নানা দেশ ঘুরাইয়া আমাকে সেই কোহেতুর পাহাড়ে আনিয়া পৌছাইয়া দিল । সেখানে দাঁড়াইয়া আমি আল্লার সঙ্গে কথা বলিলাম।” এরপর তাহারা মুসলমান মোসাফিরকে জিজ্ঞাসা করিল, “এবার তোমার স্বপ্ন বল ভাই ।” 
     মিঠাই খাওয়ার একটা লম্বা ঢেকুর তুলিয়া এবার মুসলমান মুসাফির আরম্ভ করিল, “আমার স্বপ্নটা ভাই বড়ই খারাপ।” ইহুদি আর খ্রিস্টান খুশি হইয়া জিজ্ঞাসা করিল, “বলিয়াই ফেল না ভাই, কেমন স্বপ্ন দেখিলে!”
     মুসলমান কহিল, “আমি ভাই, দেখিলাম, কোথাকার এক ভীষণ দৈত্য আসিয়া আমার ঘাড় ধরিয়া বলিল, “জলদি মিঠাই খাইয়া ফেল্– নতুবা তোকে গলা টিপিয়া মারিব। আমি আর কি করিব, তাড়াতাড়ি সবটা মিঠাই খাইয়া ফেলিলাম।” এই বলিয়া রুমালের ঢাকনি সরাইয়া মিঠাই-এর খালি পাত্রটা দেখাইয়া দিল ।
    ইহুদি আর খ্রিস্টান তখন একবাক্যে জিজ্ঞাসা করিল, “তুমি ভাই, আমাদের ডাকিলে না কেন ? আমরা উঠিয়া দৈত্যটাকে তাড়াইয়া দিতাম।”
     মুসলমান বলিল, “ডাক কি কম দিলাম ভাই! কত জোরে জোরে তোমাদের ডাকিলাম ।”
তারা দুইজন জিজ্ঞাসা করিল, “কিন্তু আমরা ত নিকটেই ছিলাম ; তবে শুনিলাম না কেন ?”
     মুসলমান বলিল, “কি করিয়া শুনিবে ভাই! তোমাদের একজন রহিলে সেই চৌঠা আসমানের উপরে, আর একজন রহিলে সেই অত দূরে কোহেতুর পাহাড়ের উপরে। আমার ডাক অত দূরে যাইবে কি করিয়া ?”
Previous
Next Post »
0 মন্তব্য