গোবার মামা

ব্যস্তবাগীশ গোবরমামা ভারি,
কখন কি যে বিপদ ঘটে তারি--
কী করে যে কাটবে সে সব ফাঁড়া
দিন রাত্তির ভেবে ভেবেই সারা।
সেদিন তিনি পাশের ঘরে সাঁঝে
ব্যস্ত ছিলেন কি যেন এক কাজে,
কোলো পড়ে মাস্টর মশার কাছে
কালকে আবার ভূগোল পড়া আছে।
মাস্টার মশাই বোঝান সহজ করে--
সূর্যটা ষাট কোটি বছর পরে
এমনি ধারা থাকবে না তো, ক্রমে
তেজটা যাবে তখন কমে।
পৃথিবীও যাবে তখন মরে
আজ থেকে ষাট কোটি বছর পরে।

ও ঘরেতে গোবরমামা হাঁফান
খেপে গিয়ে মেঝের পরে লাফান।
আনো আনো জল আনো আর পাখা
গোবরমামায় যায় না ধরে রাখা
“হায় কি হবে, হায় কি হবে”--বলে
ভিরমি খেয়ে মেঝেয় পড়েন টলে।
জ্ঞান পেয়ে ফের বসেন তিনি উঠে
পাশের ঘরে হঠাৎ গেলেন ছুটে--
মাস্টার মশাই বলুন ব্যাপারটা কি?
সূর্য নেভার আর ক’বছর বাকি?
বলুন তো ঠিক আর  ক’বছর পরে
এই পৃথিবীর সবাই যাবে মরে?
মাস্টার মশাই বলেন, --“দেরি আছে
অনেক বছর, ষাট কোটির কাছে।”
মামা বলেন, “আঃ বাঁচালেন তবে,
ভেবেছিলাম সাত কোটি বা হবে।”

[-- ধীরেন বল]
Previous
Next Post »
0 মন্তব্য