গাধা -তারাপদ রায়

গাধা নিয়ে আমার একটা তিক্ত বাল্যস্মৃতি আছে।
তখন আমি স্কুলের মাঝারি ক্লাসের ছাত্র, সেভেন এইট হবে। আমাদের সংস্কৃতের সেকেন্ড পন্ডিত ছিলেন অত্যন্ত রগচটা প্রকৃতির ছেলে, রীতিমতো মারকুটে স্বভাব। একদিন ‘পঞ্চতন্ত্র’ পড়াতে পড়াতেই বোধ হয় তিনি প্রশ্ন করলেন, ‘রাসভ মানে কি?’
ক্লাসে কেউই পারল না মানেটা বলতে। তখন পন্ডিতমশাই আদেশ করলেন, ‘এই শ্রেণীকক্ষে যারা রাসভ রয়েছ, সবাই উঠে দাঁড়াও।’
কেউই উঠতে পারল না।আমার যে কী খেয়াল হল আমি প্রায় কিছু না বুঝে একাই উঠে দাঁড়ালাম। তখন কি আর জানতাম যে রাসভ মানে গাধা, তা হলে কি উঠে দাঁড়াই।
পন্ডিতমশাই বললেন, ‘তুমি দাঁড়ালে যে, তুমি কি রাসভ?’
আমি বিনীতভাবে বললাম, ‘আপন দাঁড়িয়ে আছেন তাই দাঁড়ালাম।’

পন্ডিতমশাই রেগে গেলেন, ‘তা হলে এই শ্রেনীকক্ষে তুমি আর আমি দু’জনে রাসভ। আমাদের চার চরণ কোথায়?’
আমি ভয়ে ভয়ে বললাম, ‘স্যার, আমার দুই চরণ আর আপনার দুই চরণ, এই নিয়ে চার চরণ।’
এবার পন্ডিতমাশাই খেপে গেলেন,... আমাকে মারতে লাগলেন। অর্ধেক গর্ধভত্বের রাগে তিনি দিশেহারা হয়ে পেটালেন।
গাধামির জন্যে জীবনে বহুবার বহুরকম মার খেয়েছি কিন্তু অমন পিটুনি আর খাইনি।

[রম্যরচনা ৩৬৫ – তারাপদ রায়]

লেখাটি পাঠিয়েছেন: সুমন দাস
Previous
Next Post »
0 মন্তব্য