নীতিগল্প: বাঘ ও মেষশাবক

এক বাঘ, পর্বতের ঝরনায় জলপাল করতে গিয়ে দেখতে পেল, কিছু দূরে, নীচের দিকে, এক মেষশাবক জলপান করছে।বাঘমনে মনে ভাবল, আজকে এই মেষশাবকে হত্যা করে এর কচি মাংস খাব কিন্তু বিনা দোষে এক প্রাণীকে হত্যা করা উচিত নয়। অতএব একটা দোষ দেখিয়ে তাকে হত্যা করতে হবে।

এই চিন্তা করে,বাঘ তারাতারি সেই মেষ শাবকের কাছে গিয়ে বলল, ওরে শয়তান, তোর এতো বড় সাহস, আমি এখানে জল খাচ্ছি দেখেও তুই জল ঘোলা করছিস। মেষ শাবক শুনে ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে বলল, ‘সে কি মহাশয়! আমি কিভাবে আপনার জল ঘোলা করলাম, আমি জল উপরে খাচ্ছিলাম আর আপনি উপরে জল খাচ্ছিলেন, নিজের জল ঘোরা হলেও উপরের জল ঘোলা হওয়া সম্ভব নয়।’

যাই হোক, তুই এক বৎসর আগে তুই আমার অনেক নিন্দা করেছিলি, আজ তোকে আমি তার উচিৎ শিক্ষা দিব। মেষ শাবক ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে বলল, ‘হুজুর আমার আপনি আমার উপর শুধু শুধু দোষ আরোপ করছেন, কেননা আমি এক বছর আগে তো জন্মই নেই নি, সুতরাং আমি কিভাবে আপনাতে তিরষ্কার করতে পারি।

বাঘ বলল, ‘সে সত্য কথা, সে তুই না কিন্তু তোর বাপ আমার নিন্দা করেছিল, তুই কর আর তোর বাপ করুক, একই কথা; আর আমি তোর কোন অজুহাত শুনতে চাই না। এই বলে বাঘ দূর্বল মেশ শাবককে হত্যা করল।

উপদেশঃ যদি তোমার মধ্যে কোন অন্যায় বোধ না থাকে তবে বলবানের সামনে মাথা নও না করে সাহসের সাথে লড়াই করা উচিত। আমি অপরাধী নই বা এই রকম করাটা অন্যায় এই বলে কোন অত্যাচারির হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায় না।
Previous
Next Post »
0 মন্তব্য